1. azahar@gmail.com : azhar395 :
  2. admin@gazipursangbad.com : eleas271614 :
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৯:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সভাপতি প্রতাপ, সম্পাদক শরদিন্দু মণিপুরী সমাজ কল্যাণ সংস্থার নির্বাচন সম্পন্ন-গাজীপুর সংবাদ  পটুয়াখালীতে এক কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক-গাজীপুর সংবাদ  বেড়িয়ে আসছে একে একে থলের বিড়াল-ঠাকুরগাঁওয়ে মির্জা ফখরুল-গাজীপুর সংবাদ  গোয়াইনঘাট সহ দেশ বিদেশের সর্বস্তরের জনসাধারণকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ওসি রফিকুল ইসলাম পিপিএম-গাজীপুর সংবাদ  পবিত্র ঈদ-উল-আজহার অগ্রিম শুভেচ্ছা জানান ২নং মির্জাগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এ্যাড,আবুল বাশার (নাসির)-গাজীপুর সংবাদ  পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জনতার ভাইস চেয়ারম্যান আলমগীর খোকন-গাজীপুর সংবাদ  জামালপুর থেকে একজন নীতিবান বিচারকের বিদায়-গাজীপুর সংবাদ  শিল্পকলা প্রতিযোগিতায় আবৃতিতে জেলার শ্রেষ্ঠ ছাতকের হৃদি তরফদার-গাজীপুর সংবাদ গোয়াইনঘাটে জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই খুন-গাজীপুর সংবাদ  মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ও ঈদুল আজহার অগ্রিম শুভেচ্ছা জানান ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সিরাজুল ইসলাম তুহিন।-গাজীপুর সংবাদ 

ছাতকে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি নিন্মাঞ্চল সহ নতুন-নতুন এলাকা প্লাবিত-গাজীপুর সংবাদ 

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেটের সময় : সোমবার, ৩ জুন, ২০২৪
  • ১৪ টাইম ভিউ

সেলিম মাহবুব,সিলেট:

একদিন বিরতীর পর আবারো পানি বাড়তে শুরু করেছে। টানা ভারি বর্ষণ এবং পাহাড়ী ঢলে উপজেলার নিম্নাঞ্চল সহ নতুন-নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। অনেক স্কুল-মাদ্রাসার আঙ্গিনা তলিয়ে গেছে বন্যার পানিতে। আবার কিছু-কিছু বিদ্যালয়ের শ্রেনী কক্ষে পানি প্রবেশ করায় অঘুষিতভাবে বন্ধ হয়ে পড়েছে পাঠ দান। ক্রমশ বন্যা পরিস্থিতি অবনতির দিকে ধাবিত হওয়ায় পূর্ব নির্ধারিত সময়-সূচী অনুযায়ী অনেক সরকারী-বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরীক্ষা নিতে পারছে না। আবার বন্যার কারনে অনেক প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রথম প্রান্তিক পরীক্ষা স্থগিত ঘোষনা করেছে। এদিকে টানা বর্ষণে এখানের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হলেও শনিবার রাত থেকে পরবর্তী ২৪ ঘন্টায় বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হতে দেখা গিয়েছিল। এতে মানুষের মধ্যে অনেকটা স্বস্তি ও শান্তি বিরাজ করছিল। তবে তখনো সুরমা, চেলা ও পিয়াইন নদীর পানি প্রবাহিত হচ্ছিল বিপদসীমার অনেক উপর দিয়ে। রোববার রাত থেকে প্রবল বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা ঢলে আবারো সুরমা, চেলা ও পিয়ান নদীর পানি ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে থাকে । সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাযায় বর্তমানে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৭৫ সেন্টিমিটার, চেলা নদীর পানি বিপদসীমার ৮০ সেন্টেমিটার ও পিয়াইন নদীর পানি বিপদসীমার প্রায় ৮৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ক্রমাগত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পৌরসভা সহ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের অপেক্ষাকৃত নিচু এলাকায় বসবাসরত মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে বন্যা আতাংক। উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী ধনীটিলা-ছনবাড়ী বাজার সড়ক, ইছামতি-ছনবাড়ীবাজার সড়ক, শিমুলতলা-মুক্তিরগাঁও সড়ক, বঙ্গবন্ধু সড়ক সহ উপজেলার অর্ধশতাধিক কাচা-পাকা গ্রামীন সড়ক তলিয়ে গেছে বন্যার পানিতে। ইউনিয়নের নোয়াকুট, রহমতপুর, বনগাঁও, দারোগাখালী, বৈশাকান্দি, কাজির গাও, ছনবাড়ী, ইছামতি, লুবিয়া, হাদা-চানপুর, বাগানবাড়ি, রাসনগর, রতনপুর সহ নোয়ারাই, ছাতক সদর, কালারুকা, উত্তর খুরমা, চরমহল্লা, জাউয়া, গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও, ছৈলা-আফজলাবাদ, দক্ষিন খুরমা, ভাতগাঁও, দোলারবাজার ও সিংচাপইড় ইউনিয়নের অর্ধশতাধিক গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ বর্তমানে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। কৃষি আউশ-আমন ধানের বীজতলা ও শাক-সবজীর বাগান তলিয়ে গেছে বন্যার পানিতে। তবে কোথায় কোন বড় ধরনের ক্ষয়-ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। পানি বৃদ্ধির কারনে উপজেলা আশ্রয় কেন্দ্র সহ আগাম প্রস্তুতি গ্রহন করেছে উপজেলা প্রশাসন। ছাতক-গোবিন্দগঞ্জ, ছাতক-জাউয়া, ছাতক-দোয়ারা ও ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কের বিভিন্ন অংশে বন্যার পানি প্রায় সমতলে চলে এসেছে। পানিবৃদ্ধি অব্যাহতি থাকেলে এসব সড়কের যোগাযোগ ব্যবস্থা যেকোনা সময় বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে। পানি বৃদ্ধি দেখে সাধারন মানুষও বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। শুকনো খাবার সহ ব্যবহারিক অপরিহার্য দ্রব্যাদি সংগ্রহে রাখার প্রবনতা সৃষ্টি হয়েছে সাধারন মানুষের মধ্যে। অপর দিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে বেশ কয়েকটি আশ্রয় কেন্দ্র। এখন পর্যন্ত বন্যাকবলিত কোন পরিবার আশ্রয় কেন্দ্রে আসতে দেখা যায়নি। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুতি প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গোলাম মোস্তাফা মুন্না জানান, বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় উপজেলা প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে। পর্যাপ্ত আশ্রয় কেন্দ্রের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত সহ প্রাথমিক সব ধরনের প্রস্তুতি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গ্রহন করা হয়েছে। এখনও আশ্রয় কেন্দ্রে কেহ আশ্রিত হয়নি। কোন ধরনের গুজবে আতংকিত না হওয়ার জন্য তিনি উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের প্রতি আহবান জানান। বন্যা মোকাবেলায় সকলের সার্বিক সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।##
ছাতকে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি
নিন্মাঞ্চল সহ নতুন-নতুন এলাকা প্লাবিত

সেলিম মাহবুব,সিলেট:
একদিন বিরতীর পর আবারো পানি বাড়তে শুরু করেছে। টানা ভারি বর্ষণ এবং পাহাড়ী ঢলে উপজেলার নিম্নাঞ্চল সহ নতুন-নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। অনেক স্কুল-মাদ্রাসার আঙ্গিনা তলিয়ে গেছে বন্যার পানিতে। আবার কিছু-কিছু বিদ্যালয়ের শ্রেনী কক্ষে পানি প্রবেশ করায় অঘুষিতভাবে বন্ধ হয়ে পড়েছে পাঠ দান। ক্রমশ বন্যা পরিস্থিতি অবনতির দিকে ধাবিত হওয়ায় পূর্ব নির্ধারিত সময়-সূচী অনুযায়ী অনেক সরকারী-বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরীক্ষা নিতে পারছে না। আবার বন্যার কারনে অনেক প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রথম প্রান্তিক পরীক্ষা স্থগিত ঘোষনা করেছে। এদিকে টানা বর্ষণে এখানের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হলেও শনিবার রাত থেকে পরবর্তী ২৪ ঘন্টায় বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হতে দেখা গিয়েছিল। এতে মানুষের মধ্যে অনেকটা স্বস্তি ও শান্তি বিরাজ করছিল। তবে তখনো সুরমা, চেলা ও পিয়াইন নদীর পানি প্রবাহিত হচ্ছিল বিপদসীমার অনেক উপর দিয়ে। রোববার রাত থেকে প্রবল বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা ঢলে আবারো সুরমা, চেলা ও পিয়ান নদীর পানি ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে থাকে । সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাযায় বর্তমানে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৭৫ সেন্টিমিটার, চেলা নদীর পানি বিপদসীমার ৮০ সেন্টেমিটার ও পিয়াইন নদীর পানি বিপদসীমার প্রায় ৮৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ক্রমাগত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পৌরসভা সহ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের অপেক্ষাকৃত নিচু এলাকায় বসবাসরত মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে বন্যা আতাংক। উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী ধনীটিলা-ছনবাড়ী বাজার সড়ক, ইছামতি-ছনবাড়ীবাজার সড়ক, শিমুলতলা-মুক্তিরগাঁও সড়ক, বঙ্গবন্ধু সড়ক সহ উপজেলার অর্ধশতাধিক কাচা-পাকা গ্রামীন সড়ক তলিয়ে গেছে বন্যার পানিতে। ইউনিয়নের নোয়াকুট, রহমতপুর, বনগাঁও, দারোগাখালী, বৈশাকান্দি, কাজির গাও, ছনবাড়ী, ইছামতি, লুবিয়া, হাদা-চানপুর, বাগানবাড়ি, রাসনগর, রতনপুর সহ নোয়ারাই, ছাতক সদর, কালারুকা, উত্তর খুরমা, চরমহল্লা, জাউয়া, গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও, ছৈলা-আফজলাবাদ, দক্ষিন খুরমা, ভাতগাঁও, দোলারবাজার ও সিংচাপইড় ইউনিয়নের অর্ধশতাধিক গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ বর্তমানে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2024
Developer By Zorex Zira

Design & Developed BY: ServerSold.com

https://writingbachelorthesis.com